Monday March8,2021

বহুল আলোচিত লক্ষ্মীপুর-২ আসনের সংসদ সদস্য কুয়েতে কারাবন্দি শহিদ ইসলাম পাপুলের স্ত্রী সেলিনা ইসলাম ও মেয়ে ওয়াফা ইসলামকে দেওয়া জামিন কেন বাতিল করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট। বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি মহি উদ্দিন শামীমের হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ সোমবার এ আদেশ দেন।

পাপুলের স্ত্রী ও মেয়ের জামিনকে ঢাকা মহানগর সিনিয়র বিশেষ জজ আদালতের দেওয়া জামিন বাতিল চেয়ে দুদকের করা আবেদনে এ আদেশ দেন আদালত। দুর্নীতি দমন কমিশনের(দুদক) পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট খুরশীদ আলম খান। রাষ্টপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল একেএম আমিন উদ্দিন মানিক।

গতবছর ২৭ ডিসেম্বর সেলিনা ইসলাম ও ওয়াফা ইসলামকে জামিন দেয় ঢাকা মহানগর সিনিয়র বিশেষ জজ আদালত। এই জামিন বাতিল চেয়ে রবিবার হাইকোর্টে আবেদন জানায় দুদক।

এর আগে গত ১১ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের একই বেঞ্চ সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য সেলিনা ইসলাম ও তার মেয়ে ওয়াফা ইসলামের জামিন আবেদনের সঙ্গে বাংলাদেশ ব্যাংকের জাল নথি দাখিল করার ঘটনা তদন্তের নির্দেশ দেন। দুইমাসের মধ্যে তদন্ত সম্পন্ন করতে দুদককে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

দুই কোটি ৩১ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদ ও ১৪৮ কোটি টাকার অর্থ পাচারের অভিযোগে শহিদ ইসলাম পাপুল ও তার স্ত্রী, কন্যা ও শ্যালিকা জেসমিন প্রধানের বিরুদ্ধে গতবছর ১১ নভেম্বর মামলা করে দুদক। এ মামলায় গতবছর ২৬ নভেম্বর তারা হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করেন। এই জামিন আবেদনের ওপর শুনানিতে নথি জালিয়াতির অভিযোগ আদালতের সামনে আসে।

কুয়েতের অপরাধ তদন্ত বিভাগ (সিআইডি) শহিদ ইসলাম পাপুলকে গতবছর ৬ জুন কুয়েতে গ্রেপ্তার করে। সেই থেকে তিনি সেখানে কারাবন্দি। এরইমধ্যে কুয়েত সিআইডি তার বিরুদ্ধে সেখানে মানবপাচার ও অর্থপাচারের মামলা করে। ঘুষ দেওয়ার দায়ে কুয়েতের আদালত পাপুলকে ৪ বছরের কারাদণ্ডের পাশাপাশি ৫৩ কোটি ১৯ লাখ ৬২ হাজার টাকা জরিমানা করেছে। এখনও সেখানে মানব ও অর্থপাচারের অভিযোগ বিচারাধীন।