Saturday February27,2021

প্রথম দিন বোনার আর দ্বিতীয় দিন জসুয়া ডি সিলভা ও আলজারি জোসেফ পুরোটা সময়ই মুমিনুলদের চরম ভুগিয়েছেন। দ্বিতীয় দিন সকালে ৯০ রান করা বোনার মিরাজের বলে সাজঘরে ফিরলেও সপ্তম উইকেট জুটিতে ১১৬ রান তুলে ম্যাচের চিত্রটাই পাল্টে দেন সিলভা-জোসেফ জুটি। তাইজুলের দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে জসুয়া আউট হওয়ার পর উইকেট পতনের মহড়া শুরু হলেও ৪০০ পেরিয়ে থেমেছে সফরকারী উইন্ডিজ। ঢাকা টেস্টের প্রথম ইনিংসে বাংলাদেশের সামনে ৪০৯ রান ছুড়ে দিয়েছে অতিথিরা।

জবাবে ব্যাট করতে নেমেই দুই টপ অর্ডার ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকার ও নাজমুল হোসেন শান্তকে হারিয়েছে বাংলাদেশ। দুজনকেই নিজের শিকারে পরিণত করেছেন ক্যারিবীয়ান পেসার শ্যানন গ্যাব্রিয়েল। এ প্রতিবেদন লিখা পর্যন্ত স্বাগতিকদের সংগ্রহ ২ উইকেটে ১১ রান। উইকেটে আছেন দুই অভিজ্ঞ ক্যাম্পেইনার তামিম ইকবাল ও অধিনায়ক মুমিনুল হক।

এর আগে টসে জিতে ব্যাট করতে নেমে ৫ উইকেটে ২২৩ রান নিয়ে প্রথম দিন শেষে দ্বিতীয় দিন সকালেও বোনার-ডি সিলভা জুটিতে দারুণভাবেই এগোচ্ছিল সফরকারীরা। তবে দ্বিতীয় দিনের প্রথম ঘণ্টায় স্বাগতিক বাংলাদেশের পক্ষে প্রতিপক্ষের শিবিরে প্রথম আঘাত হানেন অফস্পিনার মেহেদি হাসান মিরাজ। ৯০ রান করা এনক্রুমা বোনারকে মোহাম্মদ মিঠুনের তালুবন্দি করে সাজঘরে ফেরত পাঠান। বোনার ফেরার সিলভাকে নিয়ে গড়েন ৮৮ রানের মূল্যবান জুটি।

মূলত বোনার, সিলভা ও জোসেফের ব্যাটেই চারশ পেরোয় ক্যারিবীয়রা। ১৮৭ বলে ৯২ রান করা সিলভার ইনিংসটি সাজানো ছিল ১০টি বাউন্ডারিতে। জুটি ভাঙার পর জোসেফও আর সুবিধা করতে পারেননি। রাহীর বলে সুইপ খেলতে গিয়ে লিটন দাসের হাতে ধরা পড়েন ক্যারিয়ার সেরা ৮২ রানের ইনিংস খেলা এই ক্যারিবীয়ান। ৮টি বাউন্ডারি ও ৫টি ছক্কার মারে ১০৮ বলে ৮২ রানের বিধ্বংসী ইনিংস খেলেন জোসেফ।

বাংলাদেশের পক্ষে রাহী ও তাইজুল ৪টি করে এবং মিরাজ ও সৌম্য ১টি করে উইকেট নেন।

এর আগে গতকাল ইনিংসের গোড়াপত্তন করতে এসে উদ্বোধনী জুটিতে ব্র্যাথওয়েট ও ক্যাম্বেল মিলে করেন ৬৬ রান। কিন্তু তখনই সেই জুটি ভেঙে ঢাকা টেস্টে প্রতিপক্ষ শিবিরে প্রথম আঘাত হানেন তাইজুল। ৫ বাউন্ডারি ও এক ছক্কায় ৬৮ বলে ৩৬ রান করে ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠা ক্যাম্বেলকে থামান এই বাঁহাতি স্পিনার। প্রথম সেশনে বাংলাদেশের প্রাপ্তি ছিল ওই এক উইকেটই।

কিন্তু দ্বিতীয় সেশনের প্রথম ঘণ্টায়ই উইন্ডিজের ৩ উইকেট তুলে নিয়ে ম্যাচে ফিরে মুমিনুল বাহিনী। তাইজুলের প্রথম আঘাতের পর এবার ক্যারিবীয়ান শিবিরে ‘গতি-বিষ’ ঢালেছেন দুই পেসার আবু জায়েদ রাহী ও সৌম্য সরকার। একে একে সাজঘরে ফেরান সাইনে মোসলে, অধিনায়ক ক্রেইগ ব্রাথওয়েট ও বিধ্বংসী কাইল মায়ার্সকে।
দলীয় ৮৭ রানে সাইনে মোসলেকে (৭) সাজঘরে পাঠান মোস্তাফিজের বদলি হিসেবে ঢাকা টেস্টে দলে জায়গা পাওয়া আবু জায়েদ রাহী। এরপর ক্যারিবীয়ান অধিনায়ক ক্রেইগ ব্রাথওয়েটের (৪৭) উইকেটটি তুলে নেন সাকিবের বদলি হিসেবে ১৮ সদস্যের স্কোয়ারের বাইরে থেকে অলরাউন্ডার তকমায় দলে ডাক পাওয়া সৌম্য।

চট্টগ্রাম টেস্টে অভিষেক ম্যাচেই ইতিহাস গড়া ডাবল সেঞ্চুরি করা কাইল মায়ার্সও রাহীর বলে ফেরেন মাত্র ৫ রান করে। জার্মেইন ব্ল্যাকউডকে ব্যক্তিগত ২৮ রানে ফিরিয়ে দেন তাইজুল। ১৭৮ রানে ৫ উইকেট হারানোর পর সিলভাকে নিয়ে বাকি দিন অবিচ্ছিন্ন থাকেন বোনার। দলের স্কোরকে নিয়ে যান ২২৩ রানে। সেটা দ্বিতীয় দিন গিয়ে থামে ৪০৯ রানে।