Sunday March7,2021

পরীক্ষা ছাড়াই শনিবার (৩০ জানুয়ারি) এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হচ্ছে। রাজধানীর সেগুনবাগিচার আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট আয়োজিত অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে ফল ঘোষণা করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে অনলাইনে যুক্ত হয়ে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ফল ঘোষণার উদ্বোধন করবেন। এ ফলে কোন শিক্ষার্থী অসন্তুষ্ট হলে তা পর্যালোচনা বা ‘রিভিউ’ আবেদন করতে পারবে। আন্তঃশিক্ষা বোর্ড সমন্বয় সাব-কমিটির পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক এস এম আমিরুল ইসলাম গণমাধ্যমকে বলেন, শনিবার সকাল সাড়ে ১০টায় এইচএসসির ফল ঘোষণা করা হবে। যারা আগেই রেজিস্ট্রেশন করে রেখেছেন, তারা এসএমএসে ফল পাবেন। বেলা ১১টায় শিক্ষা বোর্ডগুলোর ওয়েবসাইটেও ফল আপলোড করা হবে।

রিভিউ আবদেনের সুযোগ থাকছে জানিয়ে তিনি বলেন, ফলাফলে কারো আপত্তি থাকলে রিভিউ করতে পারবেন। ফলাফল প্রকাশের পর রিভিউয়ের পদ্ধতি জানিয়ে নোটিস দেওয়া হবে। ফলে অসন্তুষ্ট হলে আবেদনের সুযোগ দেওয়া হবে। আজ শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা এমএ খায়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, ফল প্রকাশ অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে অনলাইনে যুক্ত থাকবেন।

এইচএসসির ফল পাওয়ার জন্য প্রি-রেজিস্ট্রেশন শুরু হয়েছে। প্রি-রেজিস্ট্রেশন করায় ফল প্রকাশের দিন ঘরে বসেই ফল সংগ্রহ করতে পারবেন শিক্ষার্থীরা। প্রি-রেজিস্ট্রেশনের ব্যাপারে আগেই বিজ্ঞপ্তি দিয়ে আহ্বান জানিয়েছে টেলিটক। প্রি-রেজিস্ট্রেশনের জন্য শিক্ষার্থীকে মোবাইলের ম্যাসেজ অপশনে গিয়ে HSC লিখে একটি স্পেস দিয়ে শিক্ষা বোর্ডর নাম দিয়ে একটি স্পেস দিয়ে রোল নম্বর লিখে একটি স্পেস দিয়ে ২০২০ লিখে ১৬২২২ নম্বরে পাঠাতে হবে। প্রি-রেজিস্ট্রেশন করা শিক্ষার্থীরা ফল প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গেই মোবাইল নম্বরে ফল পেয়ে যাবেন। এছাড়াও ওয়েবসাইটের (www.educationboardresults.gov.bd) মাধ্যমেও ফল জানতে পারবেন শিক্ষার্থীরা। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট শিক্ষাবোর্ডের ওয়েবসাইট থেকেও ফল জানা যাবে।

গত বছরে ১১টি শিক্ষা বোর্ডের এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল ১৩ লাখ ৬৫ হাজার ৭৮৯ জন শিক্ষার্থীর। পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা ছিল ১ এপ্রিল। কিন্তু করোনাভাইরাসের প্রকোপ বাড়তে শুরু করলে ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর গত ৭ অক্টোবর এক সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানান, জেএসসি ও এসএসসির ফলাফলের গড় করে ২০২০ সালের এইচএসসির ফল নির্ধারণ করা হবে। জেএসসি-জেডিসির ফলাফলকে ২৫ এবং এসএসসির ফলকে ৭৫ শতাংশ বিবেচনায় নিয়ে উচ্চমাধ্যমিকের ফল ঘোষিত হবে। পরে পরীক্ষা ছাড়াই ২০২০ সালের এইচএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ করতে আইন সংশোধন করে গেজেট প্রকাশ করে সরকার।

জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের স্বাক্ষরিত ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ফলাফল ঘোষণা উপলক্ষে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সমাবেশ সম্পূর্ণ নিষেধ। শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ফলাফল পাওয়া যাবে না। এবার ফলাফল অনলাইনে প্রকাশিত হবে। পরীক্ষা কেন্দ্রে অথবা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে কোনো ফল পাঠানো হবে না। কাজেই কোনো অবস্থাতেই ফলাফল প্রকাশের দিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জমায়েত হওয়া যাবে না।

সংসদে পাস হওয়া তিনটি বিলে রাষ্ট্রপতি মোঃ আবদুল হামিদ সই করার পর সোমবার (২৫ জানুয়ারি) রাতে তা গেজেট আকারে প্রকাশ করা হয়। রাষ্ট্রপতির সম্মতির পর গেজেট জারি করায় পরীক্ষা ছাড়া এইচএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশের দিন চূড়ান্ত করা হলো।