Saturday March6,2021

     গনঅভুথান দিবস উপলক্ষে আজ জাতীয় প্রেস ক্লাবে    নাগরিক ঐক্যের  এক  আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়  দলের আহ্বায়ক  মাহমুদুর রহমান মান্নার সভাপতিত্বে, দলের সমন্বয়ক শহীদুল্লাহ কায়সারের সঞ্চালনায় বক্তব্য রাখেন বিএনপির মহাসচিব মীর্জা ফখ্রুল ইসলাম আলমগীর  কল্যাণ পার্টির  সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম, বিপ্লবী ওয়ার্কার্স পার্টির সাইফুল হক, গনসংহতির সমন্বয়ক জুনায়েদ সাকী,  মুক্তিযোদ্ধা দলের সাধারন সম্পাদক        সাদেক আহমেদ খান,    গনস্বাস্থ্যের ডাঃ জাফরুল্লাহ চৌধুরী, সাংবাদিক এবং পেশাজীবীদের নেতা শওকত মাহমুদ, নাগরিক ঐক্যের উপদেষ্টা এস এম আকরাম, নাগরিক ঐক্যের কেন্দ্রীয় নেতা  এস এম এ কবীর হাসান,  ফেরদৌসী আক্তার ।
 মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর  বলেন  ১৯৬৯ এর গণঅভ্যুত্থান দিবসকে স্মরণীয় করে রাখতে নাগরিক ঐক্যের আজকের এ আয়োজন, তাদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই। আমাদের অধিকারের জন্য পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলাম, আজ স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী পালন করার সময় সেই একইরকম রাজনৈতিক পরিস্থিতি বিরাজ করছে। আজ নির্বাচন কমিশন এর দুর্নীতি নিয়ে বিশিষ্টজনরা কথা বলেছেন, তারা সবচেয়ে বড় দুর্নীতি করেছেন মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে  নিয়ে। সিংহাসন টিকিয়ে রাখতে এই সরকার সংবিধান লঙ্ঘন করেছে, এর বিচার একদিন হবে। করোনার শুরু থেকে এখন ভ্যাক্সিন পর্যন্ত তারা সবকিছু নিয়ে নিজেদের পকেট ভরার কাজ করেছে, মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি করেছে। সবাইকে এক হয়ে আন্দোলন করে এই সরকারকে পদত্যাগে বাধ্য করতে হবে।
নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক    মাহমুদুর রহমান বলেন   আজ ২৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৯ সালে যে গণঅভ্যুত্থান হয়েছিলো তা পাকিস্তানের শাসনকে ভেঙে বাংলাদেশের জন্ম দিয়েছিলো, আজ সেই দিন। যেই গণঅভ্যুত্থান থেকে শেখ মুজিবুর রহমানের বঙ্গবন্ধু হিসেবে জন্ম হয়েছিলো, সেই সরকার কি আজকের এই দিনের কথা মনে রেখেছে? রাখেনি। ভোট ডাকাতি করে ক্ষমতায় আছেন। ১৯৬৯ এর মতো করে আর একটি গণঅভ্যুত্থান এখন লাগবে। আজ এখানে ঘোষণা করছি, গণঅভ্যুত্থান ঘটিয়ে এই অবৈধ সরকারের বিদায় করবো৷ আজ যারা মঞ্চে আছেন, নাগরিক ঐক্যের পক্ষ থেকে সকলকে আহ্বান জানাচ্ছি, আসুন একসাথে একমঞ্চ থেকে আন্দোলন করে, এক মঞ্চে সম্ভব না হলে এরশাদবিরোধী আন্দোলনের মতো করে যার যার জায়গা থেকে এক কর্মসূচি নিয়ে আন্দোলন করুন।
প্রধানমন্ত্রী কেন আজ নিজে টিকা না দিয়ে জনগণকে বলেন। এই টিকা নিতে ভয় পাচ্ছেন? নিজেদের জানের ভয় আছে, জনগণের প্রতি কোনো দরদ নেই কেন? এই টিকা নিয়ে দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে। জাফরুল্লাহ ভাই এই দাবি নিয়ে রাস্তায় এসে বসুন। আমি সবাইকে, সব রাজনৈতিক দলকে ডাকবো। লক্ষ কোটি টাকা দুর্নীতি লুট করছেন, পদ্মা সেতুর একেকটা স্প্যান বসিয়ে বিশাল প্রচারণা করছেন। কতো টাকার দুর্নীতি করছেন? প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, কারা কারা বিদেশে টাকা পাঠান, তিনি জানেন, কেন তাদেরকে কিছু বলেন না? এই দুর্নীতি রোধ করতে হবে। এই লিস্ট বের করবো, তৈরি হোন। আজ নাগরিক ঐক্যের পক্ষ থেকে এই গণঅভ্যুত্থান দিবসে সকলকে এক মঞ্চে এসে এই সরকারের পদত্যাগের জন্য আন্দোলনের শপথ নিতে আহ্বান জানাই।
শুদ্ধস্বর/বিটি