Saturday March6,2021

জার্মানিতে আজই প্রথম করোনা ভ্যাকসিন নিলেন ১০১ বছর বয়সী এডিথ কুইজাল্লা

 

 

জার্মানিতে এখন পর্যন্ত বৃহত্তম টিকাদান অভিযানের পরিকল্পনা শুরু হওয়ার আগেই টিকা দেয়ার  কার্যক্রম শুরু হলো আজ।  স্যাক্সনি-আনহাল্টের একটি সিনিয়র কেন্দ্রে, শনিবার ১০১ বছর বয়সী এডিথ কুইজাল্লা (Edith Kwoizalla) এবং প্রায় ৪০ জন বাসিন্দাকে টিকা দেওয়া হয়েছে।    ১০১  বয়সী  এডিথ কুইজাল্লার  নাম  জার্মানের  ইতিহাসে  প্রথম  Covid -১৯  ভ্যাকসিন  গ্রহণকারী  হিসাবে  স্মরণীয় হয়ে থাকবেন।

 

ইতিমধ্য  আরো দশজন নার্সকেও টিকা দেওয়া হয়েছে।  দেশব্যাপী টিকা অভিযানের শুরুটি কেবলমাত্র রবিবারের জন্যই পরিকল্পনা করা হয়েছিল। অবসর হোমের অপারেটর টোবিয়াস ক্রুগার ( Tobias  Krueger)  স্পষ্টতই কোনও সময় হারাতে চাননি ;  “প্রতিদিন আমরা অপেক্ষা করছি;   একদিনও   আমাদের জন্য খুব বেশি”  তিনি  বলেন।  টিকাদান এর পূর্বে  জেলা কার্যালয় তাকে  জিজ্ঞাসা করেছিল যে বাড়িতে কি সবকিছু প্রস্তুত করা হয়েছে ?

 

সমস্ত ফেডারেল রাজ্যে রবিবার থেকে টিকাদান শুরু করা  উচিত, কারণ  শনিবার  থেকেই  কয়েক হাজার টিকা ডোজ সরবরাহ করা হয়েছিল। এগুলি দায়বদ্ধ রাজ্য কর্তৃপক্ষ কর্তৃক টিকা কেন্দ্র এবং মোবাইল দলে বিতরণ করা হবে।  প্রথমত, ৮০ বছরের বেশি বয়সের লোকেরা, পাশাপাশি নার্স এবং হাসপাতালের কর্মীদের, যারা  সংক্রামিত  হওয়ার বিশেষ ঝুঁকিতে  অবস্থান করছেন , তাদেরকে এই ব্যাপারে   অগ্রাধিকার দেয়া হবে।

 

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জেনস স্পেন (Jens Spahn)  করোনার ভাইরাসের বিরুদ্ধে যতটা সম্ভব লোককে টিকা দেওয়ার জন্য “জাতীয়তার শক্তি প্রদর্শন” করার আহ্বান জানিয়েছিলেন। “এই ভ্যাকসিন এই মহামারীকে পরাস্ত করার চূড়ান্ত মূল চাবিকাঠি। বার্লিনের সি.ডি.ইউ (CDU ) রাজনীতিবিদ বলেছেন, “আমরা আমাদের জনগণের  জীবন  ফিরিয়ে আনতে পারি” , এটাই মূল বিষয়।

 

হার্জ পর্বতমালার হালবারস্টাড্টের Halberstadt im Harz) সিনিয়র সিটিজেন সেন্টারে  ৫৯ জন বাসিন্দার দুই তৃতীয়াংশ এই টিকা দেওয়ার পক্ষে এবং ৪০ জন কর্মচারীর এক চতুর্থাংশ। তাদের মধ্যে হোম ম্যানেজার ক্রুগারও ছিলেন। তিনি মনে করেন টিকাটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ।  “তবে আমি যারা  টিকা গ্রহণের বিরুদ্ধে;  তাদের উদ্বেগগুলিও বুঝতে পারি।” ১৫ই জানুয়ারী, অর্থাৎ মাত্র তিন সপ্তাহের মধ্যে, বাসিন্দারা তাদের দ্বিতীয় টিকা গ্রহণ করবেন।

 

 

জার্মানিতে  ২৭.১১.২০১৯ থেকে  ২৬.১২.২০২০ পর্যন্ত  কোভিড – ১৯  এর  হিস্ট্রি

,মোট সংক্রামণের  সংখ্যা মোট সুস্থ হওয়ার সংখ্যা মোট মৃত্যুসংখ্যা
১,৬৩২, ৭৩৬ ১,২৩৫.৯৬৮ ২৯,৫৮০

মাহবুবুল হক/শুদ্ধস্বর ডটকমের বিশেষ প্রতিনিধি ।