Monday April12,2021

বল প্রয়োগে বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকদের সমন্বয়, ব্যবস্থাপনা ও আইনশৃঙ্খলা সম্পর্কিত জাতীয় কমিটি গঠন করেছে সরকার। এনিয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। 

বুধবার (১৬ ডিসেম্বর) রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে উপ-সচিব বেবী পারভীন স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে এ তথ্য জানা যায়।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের কমিটি বিষয়ক অধিশাখা থেকে ১৪ ডিসেম্বর উপসচিব বেবি পারভীনের সই করা প্রজ্ঞাপনে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে জাতীয় কমিটির আহ্বায়ক করার বিষয়টি জানানো হয়েছে।

এছাড়া পররাষ্ট্রমন্ত্রী, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীসহ আরও ১৬ জনকে কমিটির সদস্য করা হয়। সদস্যদের মধ্যে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোর সচিব ছাড়াও রয়েছেন— পুলিশের আইজি, এনজিও বিষয়ক ব্যুরোর মহাপরিচালক, সামরিক গোয়েন্দা মহাপরিদফতরের (ডিজিএফআই) মহাপরিচালক, জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা অধিদফতরের (এনএসআই) মহাপরিচালক, চট্টগ্রাম বিভাগের বিভাগীয় কমিশনার এবং শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার।

প্রজ্ঞাপনে কমিটি কী ধরণের কাজ করবে সেটাও উল্লেখ করা হয়েছে। কার্যপরিধিতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকদের (রোহিঙ্গা) ক্যাম্প এলাকায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষা, ব্যবস্থাপনা ও প্রত্যাবাসনসহ সব কার্যক্রমের সমন্বয় সাধন করা। প্রত্যাবাসন সংক্রান্ত জাতীয় টাস্কফোর্স (এনটিএফ) ভাসানচরে স্থানান্তরের লক্ষ্যে গঠিত জাতীয় নির্বাহী কমিটির কার্যক্রম, নিরাপত্তা প্রদান ও রোহিঙ্গা নাগরিকদের বিষয়ে গৃহীত সব কার্যক্রম পর্যবেক্ষণ, মূল্যায়ন, পুনঃনিরীক্ষণ ও পরামর্শ প্রদান করাসহ সংশ্লিষ্ট অন্যান্য বিষয়গুলো তদারক করা।

কমিটি প্রয়োজনে যে কোনও কর্মকর্তা ও ব্যক্তিকে সভায় উপস্থিত থাকার জন্য অনুরোধ জানাতে পারবে। প্রতি তিন মাসে কমিটি কমপক্ষে একটি সভা এবং প্রয়োজন অনুসারে যেকোনও সময়ে সভার আয়োজন করবে। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের রাজনৈতিক ও আইসিটি অনুবিভাগ এই কমিটিকে সাচিবিক সহায়তা প্রদান করবে। এই কমিটি অবিলম্বে কার্যকর হবে বলে প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়।