ইউরোপে করোনার সংক্রমণ বেড়েছে, সতর্কবার্তা ডব্লিউএইচওর

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) পরিসংখ্যান বলছে, ইউরোপজুড়ে বেড়েছে নভেল করোনাভাইরাসে সংক্রমণ। ইউরোপের দেশ জার্মানিতে গত ২৩ এপ্রিলের পর করোনার সর্বোচ্চ সংক্রমণ দেখা দিয়েছে। বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্ত শনাক্তের সংখ্যা তিন কোটি তিন লাখ ছাড়িয়েছে। এর মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রেই মোট আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে ৬৯ লাখ। আর, ইউরোপের দেশগুলোতে করোনায় আক্রান্ত শনাক্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪৯ লাখে। ইউরোপে করোনার সংক্রমণ বৃদ্ধিকে ‘সতর্কবার্তা’ হিসেবে দেখছে ডব্লিউএইচও।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ইউরোপীয় অঞ্চলের পরিচালক হ্যান্স ক্লুগ বলেন, ‘আমরা খুবই জটিল পরিস্থিতির মুখে পড়তে যাচ্ছি। ইউরোপে করোনার সংক্রমণ বেড়েছে। সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহজুড়ে ৫০ থেকে ৬৪ এবং ৬৫ থেকে ৭৯ বছর বয়সীরা বেশি আক্রান্ত হয়েছেন। সংক্রমণের শিকার হওয়া বড় একটি অংশ ২৫ থেকে ৪৯ বছর বয়সী।’ সংবাদ সংস্থা এএফপি এ খবর জানিয়েছে।

ফ্রান্সে শেষ ২৪ ঘণ্টায় ১০ হাজারের বেশি ফরাসি নাগরিক করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এরই মধ্যে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চেহারা হয়েছে করোনাকালের আগের মতো। গাদাগাদি করে বসছেন শিক্ষার্থীরা।

তবে শিক্ষার্থীদের মধ্যে বেড়েছে ফেস মাস্কের ব্যবহার।

এদিকে, করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে মার্কিন বিজ্ঞানীদের বিশ্বাস করা যায়, কিন্তু মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নয়—এমন অভিমত ডেমোক্র্যাট দলীয় প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেনের।

করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বিশ্বাস করেন না প্রতিদ্বন্দ্বী ডেমোক্র্যাট দলীয় প্রেসিডেন্ট প্রার্থী জো বাইডেন।

সংবাদমাধ্যম সিএনএনকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে এমনটা বলেছেন জো বাইডেন। তবে করোনা টাস্ক ফোর্সের সাবেক প্রধান অ্যান্থনি ফসিকে বাইডেন বিশ্বাস করছেন।

জো বাইডেন বলেন, ‘করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বিশ্বাস করি না। তবে ড. ফসিকে আমি বিশ্বাস করি। ফসি যদি করোনা ভ্যাকসিনকে নিরাপদ বলেন, তবে তা বিশ্বাসযোগ্য। তখন নিজেও সে ভ্যাকসিন নেব। বিজ্ঞানীদের বিশ্বাস করব, কিন্তু প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে নয়।’

করোনার সংক্রমণে ভারতের অবস্থান বিশ্বে দ্বিতীয়। ভারতে করোনায় আক্রান্ত শনাক্তের সংখ্যা ৫২ লাখের বেশি। এদিকে, দুর্গা পূজাকে সামনে রেখে ভূবেনশ্বরসহ ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে জনসমাগম রুখতে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হচ্ছে।

ভারতে করোনা নেগেটিভ হয়ে মারা যাওয়া এক ব্যক্তির ছেলে অভিজিত মিত্র বলেন, ‘আমার মনে হয় মৃত্যুর কারণ নিয়ে সরকার লুকোচুরি করছে। আমার বাবা করোনা নেগেটিভ ছিলেন। তবুও সরকার দূরে নিয়ে গিয়ে তাঁর শেষকৃত্য করেছে। করোনায় মৃত্যুর ব্যবস্থাপনায় শেষকৃত্য হয়েছে তাঁর।’

করোনার কারণে বিশ্বজুড়ে যখন চলছে অর্থনৈতিক, চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ঠিক তখন সংশ্লিষ্টদের মনোভাব চাঙা করতে ঘুরে বেড়াচ্ছেন দেশের নানা শিল্পকারখানায়, চীনাদের চাঙা করতে দিচ্ছেন উদ্দীপনামূলক বক্তব্য।

বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের সর্বশেষ পরিসংখ্যান জানার অন্যতম ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী, আজ শুক্রবার পর্যন্ত আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছে তিন কোটি তিন লাখের বেশি মানুষ। তাদের মধ্যে বর্তমানে ৭৩ লাখ ৫৯ হাজার ৬৪২ চিকিৎসাধীন এবং ৬১ হাজার ১৬৩ জন (১ শতাংশ) আশঙ্কাজনক অবস্থায় রয়েছে। তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর সুস্থ হয়ে উঠেছে অনেক মানুষ। এ পর্যন্ত করোনাভাইরাস আক্রান্তদের মধ্যে দুই কোটি ২০ লাখ ২৯ হাজার ৬৪৮ জন সুস্থ হয়ে উঠেছে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: