আমলাদের ঘাড় কত শক্ত, এবার প্রমাণের পালা। নিচে দুটো ছবি একত্রিত করে দিলাম। প্রথমটি আজকের সকালের অন লাইন পত্রিকা শুদ্ধস্বরের খবর এবং দ্বিতীয়টি গতকালের । যদিও দুটো দুই বিষয়, তাপরেও কোথাও না কোথাও একটি সন্ধি নিশ্চিত আছে ।

20200617_113443

গণস্বাস্থ্যের কিট করোনা শনাক্তে কার্যকর বা সক্ষম নয় । সেটা নিয়ে আমার কোনো প্রশ্ন নেই । এটা কেন কার্যকর নয় ? সেই সব বিজ্ঞানের বিষয়, বিএসএমএমইউ সেটার নিশ্চয়ই ব্যাখ্যা দিবেন। অপরদিকে আশা করি গণস্বাস্থ্য লিখিত প্রতিবেদন পেলে, উনারাও ব্যাখ্যা দিবেন ।

আমরা সাধারণ জনগণ চাইবো, যদি ছোটো খাটো কোনো ত্রুটি থাকে সেটার সংশোধনী এনে অল্প খরচে এই কিটকে কাজে লাগানো যায় কিনা, সেই ব্যবস্থা হোক। কেননা করোনা মহামারী যেভাবে ভয়ানক হয়ে উঠছে।  এর সমাধান হওয়া প্রথমত জরুরি এবং সেটা কম পয়সায় হওয়া প্রয়োজন, দেশের জনগণের সার্থেই । গণস্বাস্থ্যের কিট কম খরচের একটি উপদান অবশ্যই।

তবে এত ঘোলা জল জনমানুষদেরকে গাধা বাঁনিয়ে খাওয়ানো হলো কিনা ? সেই প্রশ্ন জনগণ তুলতেই পারে অধিকার বলে। কেননা গণতান্ত্রিক দেশ, ভয়েজ তো তোলাই যায়।  এই কথা বললাম কারণ, যত কাহিনী ঘটেছে, তার পরবর্তীতে পূর্ব থেকেই নানান কথাবার্তা চলছে যে এবং এটা কোনো দোষের নয় । সামনেও অনেক অবাঞ্ছিত কথা হতে পারে, সেটাও নিশ্চয়ই চলমান প্রক্রিয়ারই একটি অংশ ধরে নেওয়াই হবে যুক্তিযুক্ত।

শুরুতেই বলছিলাম ঘাড়ের কথা । কেন এবং কাদের ঘাড়ের কথা বলছি ? উপরের ছবিতেই আছে সেটা । সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী আ ফ ম রুহুল হক দেশের করোনা ভয়াবহতার জন্য আমলাদের দোষারোপ করেছেন। এই মহামারী নিরসনের জন্য আমলাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে এবং তারা ব্যর্থ বলে উল্লেখ করেছেন ! বাহাবা দিতেই হয় । কি চমৎকার দেখা গেলো, আসিতেছে !

ইতিমধ্যেই লক্ষ্য করেছি পত্রিকায় এবং টিভির পর্দায় অনেককেই ইদানিং বলতে শুনছি সব দোষ এখন আমলাদের ! দেশে একটি রাজনৈতিক সরকার বহাল আছে, দায়িত্বের সর্বোচ্চ চেয়ারেও রাজনৈতিক লোকজনেরাই আসনে আছেন, আথচ দোষ এখন আমলাদের  !

আমি সহ আমাদের মতন কতজনে সেই পূর্ব থেকেই বলে আসছি, দেশ চলছে আমলা নির্ভরতায় । এটা ভালো ফল দিবে না । আমাদের কথাগুলোকে বায়ুমণ্ডলে উড়িয়ে দিয়ে কতজনে কটাক্ষ করেছেন । আজকে সেইসব জ্ঞাণীজনদের সালাম জানাই । আসুন একটু কোলাকুলি করি । কেননা আপনারাতো আবার একটু বিপক্ষের মতামতকে যুক্তি না দেখিয়েই তুড়ি দিয়েই উড়িয়ে দিতে ভালোবাসেন। প্রয়োজনে কিছু একটা তকমা লাগিয়ে দিতেও কার্পণ্য করেন না ।

আর আমলাদের জন্য বলবো, এখন আবার ঘাড় ঘুরিয়ে নেবার চেষ্টা না করে, প্রমাণ করুন কত শক্ত ঘাড় আপনাদের আছে। সেটাই হবে আপনাদের জন্য নিরাপদের। একটু কঠিন কথা , তারপরেও বলতেই হয়, এই দেশের আইন-আদালত কিন্তু ইতিপূর্বেই তাদের শক্ত ঘাড়ের প্রমাণ রেখেছেন। শত শত প্রমান দেওয়া যাবে। এতদিন আপনারা আমলারা উড়ো উড়ো ভাবে চলেছেন । ধরি মাছ না ছুঁই পানি , আর কত ? এখন দায়িত্ব নিবেন না, তা তো হয় না বা হতে দিবেও না  হোক সেটা হুকুমে বা জোরজবরদস্তিতে, ঘাড়ের হিসেব আপনাদের একদিন না একদিন দিতেই হবে। হোক সেটা এই সরকারকে বা আগামীতে দেশের মালিক জনগণকে ।

আমলাদের উদ্দেশ্যে বলছি, ভুলে যাবেন না, আমরা রাজনৈতিক সরকারে আছি এবং ভবিষ্যতেত কেবলমাত্র রাজনৈতিক সরকারই চাই । আপনারা জনগণের টাকায় বেতন পান, আপনারা কেবলমাত্র জনগণের সেবক, এর বেশি কিছুই না , সুতরাং এবার হিসেব দিয়ে ঘাড়ের অবস্থান পরিষ্কার করুন । জনগণও দেখুক আপনাদের ঘাড় কত শক্ত  ?

20190210_195317

বুলবুল তালুকদার 

যুগ্ম সম্পাদক শুদ্ধস্বর ডটকম 

 

 

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: