জনি হত্যা মামলা : সাবেক এসআই জাহিদের জামিন আবেদন খারিজ

থানা হেফাজতে ইশতিয়াক হোসেন জনিকে হত্যার অভিযোগের মামলায় রাজধানীর পল্লবী থানার সাবেক উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহিদুর রহমান জাহিদের জামিনের আবেদন খারিজ করেছেন ঢাকার মহানগর দায়রা জজ কেএম ইমরুল কায়েশের ভার্চুয়াল আদালত।

আজ বৃহস্পতিবার এ আদেশ দেন আদালত। আদালতে ওই পুলিশ কর্মকর্তার পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট ফারুক আহাম্মদ। সরকারপক্ষে ছিলেন অতিরিক্ত পিপি কে এম সাজ্জাদুল হক শিহাব।

মামলার বিবরণী থেকে জানা গেছে, ২০১৪ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি সন্ধ্যায় সেকশন-১১, ব্লক-বি ইরানি ক্যাম্পের বাসিন্দা মো. সাদেকের ছেলে মো. বিল্লালের গায়ে-হলুদের অনুষ্ঠান ছিল। এই অনুষ্ঠান থেকে ইশতিয়াক হোসেন জনি ও তার ভাই ইমতিয়াজ হোসেনকে ধরে থানায় নিয়ে নির্যাতন করা হয়। ইশতিয়াকের অবস্থা খারাপ হলে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিত্সক মৃত ঘোষণা করে। ওই ঘটনায় ওইবছরের ৭ আগস্ট ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতে নির্যাতন ও হেফাজতে মৃত্যু (নিবারণ) আইনে ইশতিয়াকের ভাই ইমতিয়াজ মামলা করেন।

মামলায় পল্লবী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জিয়াউর রহমান, এসআই জাহিদুর রহমান জাহিদ, আবদুল বাতেন, রাশেদ, শোভন কুমার সাহা ও কনস্টেবল নজরুল, সোর্স সুমন ও রাসেলকে আসামি করা হয়। এরপর বিচার বিভাগীয় তদন্ত শেষে ২০১৫ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি ঢাকা মহানগর হাকিম মারুফ হোসেন আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দেন। এরপর ২০১৬ সালের ১৭ এপ্রিল ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালত পাঁচ আসামি বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে। এরা হলেন-পল্লবী থানার সাবেক উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাহিদুর রহমান জাহিদ, এএসআই রাশেদুল ও কামরুজ্জামান মিন্টু এবং পুলিশের সোর্স সুমন ও রাশেদ। এদের মধ্যে এসআই জাহিদ ও সোর্স সুমন কারাগারে রয়েছে। বাকী তিনজন জামিনে রয়েছে।

মামলাটিতে সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে সরকারপক্ষ যুক্তিতর্ক উপস্থাপন করেছে। আসামিপক্ষে যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুরু হলেও করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে তা বন্ধ রয়েছে। এ এই যুক্তিতর্ক সম্পন্ন হলে রায় ঘোষনা করা হবে।

Leave a Reply

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: