Sunday April11,2021

করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়ে যাচ্ছেন শহীদ আফ্রিদি। পাকিস্তানের সাবেক এই অলরাউন্ডার নিজ এনজিওর মাধ্যমে সাহায্য করছেন দেশটির দুস্থ-অসহায় মানুষদের। অভুক্তদের হাতে তুলে দিচ্ছেন খাবার, দিচ্ছেন চিকিৎসাসেবা। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপজয়ী এই তারকা জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে তার প্রধান কাজ হলো মানুষকে খাওয়ানো।

বর্তমানে খায়বার পাখতুনখোয়ার টাঙ্গী বান্দা গ্রামে অবস্থান করছেন আফ্রিদি। বাল্যকালটা এখানেই কেটেছে ক্রিকেটের সর্বকালের অন্যতম সেরা এই বিধ্বংসী ব্যাটসম্যানের। নিজের দাতব্য সংস্থার মাধ্যমে সেখানে বিভিন্ন সহায়তা দিচ্ছেন আফ্রিদি। খাদ্য ও স্বাস্থ্য সহায়তা বেশি গুরুত্ব পাচ্ছে তার কাছে। কারণ আফগান সীমান্তবর্তী খায়বার পাখতুনখোয়া একটি অনুন্নত এলাকা।

আর রাজধানী ইসলামাবাদের পর সেখানেই সবচেয়ে বেশি ছড়িয়েছে করোনা ভাইরাস।
পাকিস্তানের ডেইলি দ্য নেশনকে আফ্রিদি বলেন, ‘আমার কাছে এখন সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো এখানকার মানুষের খাবারের ব্যবস্থা করা। লকডাউনের কারণে দিনমজুররা কোনো কাজ পাচ্ছে না। আমাদের দেশটা উন্নত নয়।’

‘আমি ঘরে বসে থাকতে পারিনি। সবাই যদি ঘরে থাকে তবে যারা অভুক্ত তাদের কী হবে? এখন পর্যন্ত ১২-১৩ দিনে আমরা ৪৫০০ পরিবারকে খাদ্য সহায়তা দিতে পেরেছি।’ এসব খাদ্যসামগ্রীর মধ্যে রয়েছে চাল, ডাল, আটা, চিনি, তেল।

আফ্রিদি জানিয়েছেন, তিনি আরো দুর্গম এলাকায় পৌঁছে সেখানকার অসহায় মানুষদের সহযোগিতা করতে চান। আফ্রিদির চ্যারিটেবল হসপিটালে এখন পর্যন্ত ২০ গ্রামের ১ লাখ ২০ হাজার মানুষ চিকিৎসাসেবা নিয়েছে। তিনি বলেন, ‘আমাদের হাসপাতালে ওপিডি, ইমার্জেন্সি এবং অন্যান্য সুবিধা রয়েছে। ইতিমধ্যেই একটি আইসোলেশন ওয়ার্ড বানিয়েছি। যেখানে কভিড-১৯ রোগিদের রাখা হবে।’

সবশেষ খবর অনুযায়ী পাকিস্তানে কভিড-১৯ আক্রান্তের সংখ্যা ২ হাজার ৭২৯ জন। এদের মধ্যে নতুন করে আক্রান্ত ৭৯ জন। আর মারা গেছেন ৪৫ জন। পাকিস্তান স্বাস্থ্য অধিদপ্তর নতুন করে ৪ জনের মৃত্যুর সংবাদ নিশ্চিত করেছে।