Friday April16,2021

মাশরাফিকে নিয়ে চিকিৎসকদের অশ্লীল মন্তব্য, মুখ খুললেন স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী

বাংলাদেশের কিংবদন্তী ক্রিকেটার, সংসদ সদস্য মাশরাফিকে নিয়ে ফেসবুকে চিকিৎসকদের মন্তব্য নিয়ে মুখ খুললেন স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান। তিনি বলেছেন, চিকিৎসকদের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অশ্লীল-অশ্রাব্য ভাষায় কথা বলা দুঃখজনক। সম্মানিত ব্যক্তিদের নিয়ে চিকিৎসক ফেসবুকে যে ভাষায় লেখালেখি করেন সেটা কোন মতেই গ্রহণযোগ্য নয়। সম্মানিত ব্যক্তিকে নিয়ে একজন চিকিৎসক কেন এমন ভাষায় লিখবেন? কারণ তারা তো সবচেয়ে মেধাবী, তাদের কাছে তো জাতির প্রত্যাশা অনেক।

শুক্রবার বিকেলে চট্টগ্রাম সরকারি জেনারেল হাসপাতাল পরিদর্শনের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, যে সব চিকিৎসক এটা করেছেন তাদের শোকজ করা হয়েছে। এটার সমাধান আমরা অবশ্যই করব। তবে সমাধান মানে এই নয় যে, ঢালাওভাবে চিকিৎসকদের শাস্তি দেবো।

মাশরাফিকে নিয়ে ফেসবুকে চিকিৎসকদের মন্তব্য এবং পরবর্তী ঘটনাপ্রবাহ প্রসঙ্গে বলেন, মাশরাফি একজন মাননীয় সংসদ সদস্য। ওনার মতো মানুষ যদি কোনো একটা কথা বলেই ফেলেন, একজন চিকিৎসক হিসেবে তার প্রতিবাদ কি আমি ফেসবুকে করব? নিশ্চয় একজন চিকিৎসক এভাবে প্রতিবাদ করবে না। চিকিৎসকরা সেবা দেওয়ার মানুষ। সেবা করতে গিয়ে নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের আক্রমণ করা অত্যন্ত দুঃখজনক।

তিনি বলেন, অন্য পেশার সঙ্গে চিকিৎসা পেশার তুলনা করা যায় না। চিকিৎসকের দায়িত্ব হচ্ছে মানুষের জীবন বাঁচানো। আর কোনো পেশায় জড়িতদের কাজ জীবন বাঁচানো না। মানুষ তার জীবনের সবচেয়ে অসহায় অবস্থায় বাঁচার তাগিদ নিয়ে চিকিৎসকের কাছে আসে। সেজন্য আল্লাহ তা‘য়ালার পরে ডাক্তারদের বিবেচনা করে মানুষ।

স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসান আরও বলেন, আমি কাজের মাধ্যমে নিজেকে প্রমাণ করতে চাই। ফেসবুকে তথাকথিত প্রতিবাদ, আন্দোলন আর বিদ্রোহ করে সময় নষ্ট করতে চাই না। ডাক্তারদের শ্রদ্ধা-সম্মান কিভাবে বাড়ানো যায়, সেটা নিয়ে আমি কাজ করছি। পেশার জায়গায় ডাক্তারদের নিরাপত্তা এবং এই পেশার সর্বোচ্চ সম্মান নিশ্চিত করতে আমি বদ্ধপরিকর।

এর আগে গত ২৮ এপ্রিল ফেসবুকে পৃথক পৃথক পোস্টে ছয় চিকিৎসক মাশরাফিকে নিয়ে বিরূপ মন্তব্য করেন। এ ঘটনায় গত ৬ মে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের পার্সোনাল অধিশাখার উপ-সচিব শামীমা নাসরিন স্বাক্ষরিত পৃথক চিঠিতে এ শোকজের কথা জানান।

কারণ দর্শানোর নোটিশে বলা হয়, ফেসবুক টাইমলাইনে মাননীয় সংসদ সদস্য মাশরাফি বিন মর্তুজা সম্পর্কে অশালীন এবং অযাচিত ভাষা ব্যবহার করে পাবলিক পোস্ট দেয়া, মাশরাফিকে বেয়াদব আর অশিক্ষিত গেঁয়ো মাস্তান ও হাফলেডিস ইত্যাদি বলা হয়েছে।

শুদ্ধস্বর/এন.হাসান