Sunday April18,2021

একাদশ জাতীয় সংসদে বিএনপি না যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিলেও যে কোন সময় শপথ নিচ্ছেন দলটির নির্বাচিত আরও ৪ জন জনপ্রতিনিধি। দলীয় সিদ্ধান্ত না মেনে ইতিমধ্যেই ঠাকুরগাঁও-৩ আসনের সংসদ সদস্য জাহিদুর রহমান শপথ নিয়ে নিয়েছেন। জাহিদুরের বিরুদ্ধে এখনও কোনো সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। জাহিদুরের পথ অনুসরণ করে দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ছাড়া বাকি চার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিও শপথ নিচ্ছেন। বিভিন্ন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট থেকে আটজন নির্বাচিত হন। এর মধ্যে গণফোরামের দুজন নির্বাচিত হন। ছয়জন নির্বাচিত হন বিএনপির টিকিটে। এই আটজনের মধ্যে সাতজনই ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচনী বৈতরণী পার হন। একমাত্র গণফোরাম নেতা মোকাব্বির খান নির্বাচিত হন দলীয় প্রতীক উদীয়মান সূর্য প্রতীকে। তবে তিনি দলীয় ভোটে নয়, বিএনপির ভোটব্যাংক কাজে লাগিয়েই সিলেট-২ আসন থেকে জয়ী হয়েছেন।

৩০ ডিসেম্বরের ভোটের পর জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট সিদ্ধান্ত নেয় যে, নির্বাচিত আটজনের কেউ-ই সংসদে শপথ নেবে না। শপথ নিলে বহিষ্কার করা হবে। বিএনপি শুরু থেকেই বলে আসছে ৩০ ডিসেম্বর কোনো ভোট-ই হয়নি। নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করায় এই সংসদের সদস্য হিসেবে শপথ নেয়ার প্রশ্নই ওঠে না।

জাতীয় ঐকফ্রন্টের সিদ্ধান্ত সর্বপ্রথম অমান্য করেন মৌলভীবাজার-২ আসন থেকে নির্বাচিত সুলতান মোহাম্মদ মনসুর। তিনি শপথ নেয়ার পরপরই তাকে গণফোরাম থেকে বহিষ্কার করা হয়। এরপর শপথ নেন মোকাব্বির খান, তাকে এখনও বহিষ্কার করা না হলেও শোকজ করা হয়েছে। আজ গণফোরামের বিশেষ কাউন্সিলে তাকে কামাল হোসেনের পাশে বসতে দেখা গিয়েছে।

দলীয় একাধিক সূত্র জানায়, বিএনপির নির্বাচিত সংসদ সদস্য দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম ছাড়া বাকি চারজনই শপথ নিতে পারেন। তাদের মধ্যে রয়েছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে নির্বাচিত হারুনুর রশীদ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে নির্বাচিত সাবেক প্রতিমন্ত্রী উকিল আবদুস সাত্তারসহ চারজন। এ ব্যাপারে তারা অনানুষ্ঠানিকভাবে স্পিকারের কার্যালয়ে যোগাযোগও করেছেন। যদিও এ বিষয়ে তারা মুখ খুলতে নারাজ।

শুদ্ধস্বর/এন.হাসান