Wednesday April14,2021

ডাকসু নির্বাচনে নানা অভিযোগ এনে ক্ষমতাসীন দলের ছাত্র সংগঠন ছাত্রলীগ ছাড়া সবক’টি প্যানেল ভোট বর্জন করেছে। একইসঙ্গে অবিলম্বে নতুন তফসিল ঘোষণার দাবি জানিয়েছেন তারা। সোমবার বেলা ১ টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে এক সংবাদ সম্মেলনে প্রথমে প্রগতিশীল ছাত্রজোটের ভিপি প্রার্থী লিটন নন্দী চারটি প্যানেলের পক্ষে এই ঘোষণা দেন। পরে পৃথক সংবদাদ সম্মেলনে একই ঘোষণা দেন ছাত্রদল। এদিকে ভোট জালিয়াতির অভিযোগ এনে ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করছে শিক্ষার্থীরা। ক্যাম্পাসে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে তারা।

সংবাদ সম্মেলনে লিটন নন্দী বলেন, কুয়েত মৈত্রী হলে বস্তা ভর্তি সিল মারা ব্যালট পাওয়া গেছে। এস এম হলে ছাত্রলীগের ছাড়া অন্য কোন দলের লিফলেটিং করতে দেয়া হয়নি।

রোকেয়া হলে ১ ঘণ্টা পর ভোট গ্রহণ শুরু হয়েছে। রোকেয়া হলে ৩টা ব্যালট বাক্স আলাদা করে রাখা হয়। সেখানে বাক্স দেখতে চাইলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত হন। তাদের উপস্থিতিতে ভিপি প্রার্থী নুরুল হক নুরুর ওপর আক্রমণ হয়। জিয়া হলে ভোট দিয়ে আবার লাইনে দাঁড়াচ্ছেন। দুই-তিন ঘণ্টা হবার পরেও সাধারণ শিক্ষার্থীরা ভোট দিতে পারছে না। মহসীন হলে আমরা ঢুকতে গেলে আমরা ঢুকতে পারি নাই।

এসব কারণে প্রশাসনের প্রতি ঘৃণা জানিয়ে আমরা ভোট বর্জন করছি। বর্জন করা প্যানেলের মধ্যে রয়েছে- বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ, প্রগতিশীল ছাত্র ঐক্য, স্বাধীকার স্বতন্ত্র পরিষদ ও স্বতন্ত্র জোট।

পরে আলাদা সংবাদ সম্মেলনে ছাত্রদলও একই ঘোষণা দেন। সংগঠনটির পক্ষ থেকে ভিপি প্রার্থী মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, নির্বাচনের সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে ভোট ডাকাতির এই নির্বাচন আমরা বর্জন করলাম।

এদিকে ভোট বাতিল ও নতুন তফসিল ঘোষণা করে পুনরায় ভোটগ্রহণের দাবিতে ক্যাম্পাসে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে শিক্ষার্থীরা।

শুদ্ধস্বর/এন.এইচ