Wednesday April14,2021

লেজকাটা শিয়ালের গল্পটা অনেকের জানা তারপরও বলতে ইচ্ছে করছে, নতুন করে- একদা এক শিয়াল নিয়মিত মুরগি চুরি করতে করতে অবশেষে কৃষকের তাড়া খেয়ে ঝোঁপে গিয়ে আশ্রয় নিল । সে যা হোক তার লম্বা লেজ কিন্তু বাইরে রয়েই গেল, পিছু পিছু কৃষক এসে হাজির। ব্যস আর দেরী না করে কোপ দেয় । লক্ষ্যভ্রষ্ট কোপে তার শুধুই লেজটা বিচ্ছিন্ন হয় কিন্তু শিয়াল বেঁচে যায় । নিজ গোত্রে ফিরে বেমানান লেজহীন সে শিয়াল । তাই বুদ্ধি আঁটে অন্যদের লেজ থাকবে কেন ? সভা করে সবাইকে বলে, লেজটা যে তেমন কোন উপকারে আসে না তাই সকলে যেন তাদের লেজ কেটে ফেলে । সকলে বলাবলি করে হতচ্ছাড়াটা বলে কি ? ওর লেজ নেই বলে আমাদেরটাও রাখব না ! তাঁরা কিন্তু লেজ অক্ষুণ্ণ রাখে তাদের লেজ স্বকীয়তা বজায় রাখতেই । গল্পটা আর বড় করছি না । ঘটনাক্রমে রাজনীতিতে এমন শিয়ালগুলো ঢুকে পড়েছে, এদের কাছে চুরি কোন ব্যাপার নয় । এরা নদী চুরি করে উচ্ছেদ করা যায় না । এরা অন্যের জমি কেনার নামে দখল করে, প্রশাসন ব্যবস্হা নেয় না । এরা ব্যংকে জনগণের গচ্ছিত টাকা লুঠ করে বিদেশে পাচার করে, সরকার কিছু বলে না, ওদেরও কেউ কেউ জড়িত থাকে এজন্য বোধহয় । এরা জবরদস্ত মধ্যরাতের অনিয়ম ভোট করে, নির্বাচন কমিশন কিছু বলে না । এরা সংসদ গঠন করে, সরকার গঠন করে তবুও কিছু হয় না । এরাই সরকারী দল হবে, আবার এরাই আজ্ঞাবহ বিরোধীদল হবে । অনিয়মের কথাও বলে আবার অনিয়ম সমর্থনও করে । কিন্তু জনগণ রা করে না, সরকারী দল ও আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর ভয়ে, এগুলো সমর্থনও তাঁরা করে না । হালে আরও একটা নতুন ঘটনা, ইনি গণফোরামের সদস্যপদ নিয়ে ও ঐক্যফ্রন্ট থেকে মনোনয়ন নিয়েছিলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর তিনি । ইনি আওয়ামী লীগ থেকে বিতাড়িত, বিরোধীনেত্রী খালেদা’র ধানের শীষ নিয়ে বিজয়ী । কিন্তু বন্দনাকারী সরকারের, তাতেও জনগণের সমস্যা নেই । নসিহত করেন জনগণকে, তিনি নাকি সংসদে যোগ দিয়ে ঠিক করছেন । আজব কথা ! বিরোধী পক্ষ থেকে বিজয়ী হয়ে আবার বিরোধীদেরই সমালোচনা করবেন । আর এগুলো জনগণের মতামত ভাবতে হবে । এ কেমন নীতিকথা ! এমন হয় নাকি ! তিনি নিজে অনৈতিকতা ধারণ করেন বলে জনগণকে অনৈতিকতা ধারণ করতে হবে ! অবশেষে গণফোরাম তাকে বহিষ্কার করেছে । এ যা জনগণের সান্ত্বনা । এ যেন লেজ কাটা শিয়ালের গল্পটা !

20190225_211621

আলম শাহ্, বার্তা সম্পাদক, Dtv-Italy.