Sunday April11,2021

নির্বাচন কমিশনের রসিকতা ও জোকার জনপ্রতিনিধি নির্বাচন ! হাস্যকর !

বাংলাদেশে নির্বাচন মানে একটি ভোটদান উৎসব, ঈদ ও ঈদেমলা বা পুজা ও পুজাকে ঘিরে উৎসব হয়, এটা ‘র চেয়ে ক্ষেত্রবিশেষে এটা অনেক জমজমাট একটি দিন । সকল ধর্মের মানুষ যারা এ ভোটদানের উৎসব আমেজে ভোট কেন্দ্রে আসেন এবং ভোট দেন । সাথে শিশু কিশোরাও আসে, ভোটদিতে না পারলেও ভোটের দিনের আনন্দ তারা ঠিকই গ্রহণ করে । কিন্তু সরকার, সরকারী প্রশাসন ও নির্বাচন কমিশন কর্তৃক নেগেটিভ রাজনৈতিক চর্চ্চায় এটা একেবারে উবে গিয়েছে । তবে কি বিকলাঙ্গ হয়েছে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন উত্তরের মেয়র নির্বাচন ! সিটির নাগরিকগণ ভোট দিতে যান নি বললেই চলে । তাদের ভোটদানে অনীহা তৈরী হয়েছে, ভোট আগেরদিন মধ্যরাতে দেবার মতো পরিবেশ হয়েছে বা ভোট আগে থেকেই দেয়া হয়ে গিয়েছে বা শারীরিক নিরাপত্তার অভাব । ফলে জনগণ প্রত্যাখান করেছে ভোট দেয়া । এতে সরকার প্রত্যাখ্যাত কি হয় নি ! এক প্রকার ভোটবিহীন ভাবেই নিরুত্তাপ ভোটে মেয়র হলেন— আতিকুল ইসলাম । এভাবে সরকারী প্রশাসন ও নির্বাচন কমিশন সহায়তায় বর্তমান সাংসদগণ নির্বাচিত হয়েছেন । নির্বাচনে অংশ নেয়া বিরোধী দল মনোনয়ন প্রাপ্ত প্রার্থীগণকে জোর করে ভোট ময়দান থেকে বিতাড়িত করা হয়েছে, হয়ত এদের অনেকেই বিপুল ভোটে নির্বাচিত হতেন । এতে কি শুধু বিরোধী দল ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, সরকারী দল কি ক্ষতিগ্রস্ত হয় নি ? গণতন্ত্র এখানে কি পরাজয়বরণ করে নি ? আজ কেন নির্বাচন কমিশনকে বলতে হয় ভোটারগণ ভোট দিতে না এলে আমরা কি করব ? কেনইবা স্বরাষ্ট্র-মন্ত্রীকে ভোটারবিহীন কেন্দ্রে ভোটদানের এমন চিত্র দেখেও মিথ্যা সাফাই গাইতে হয় ভোটারদের ভিড়ে নাকি কেন্দ্রগুলো উপচে পড়ছে ? এমন অসম্মানজনক ভোট আয়োজন কে কবে দেখেছে ! একজন সাবেক মন্ত্রী ও বতর্মানে বয়স্ক সরকারী দলীয় রাজনীতিক বলেছেন, বিএনপি / বিরোধীদলগুলো ভোটে আসেনি বলেই ভোটের এমন দশা, এভাবে বললে তো দেশের সকল নাগরিক নির্বাচন কমিশনের ও সরকারী কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে অবস্হান করছে বুঝায় । পত্রিকান্তরে প্রকাশিত, এভাবে নির্বাচিত একজন জাঁদরেল সাংসদ আক্ষেপ করে বলেছন সরকারী অনুষ্ঠানে তিনি আর উপস্হিত হবেন না, কারণ অধনস্ত সরকারী কর্মচারিগণ তাদের বসতে সামনের কাতারের চেয়ারের আসন দিচ্ছেন না । আরেকজন বলেছেন, বিভিন্ন সরকারী অফিসে আগের মতো সম্মান বা আপ্যয়ন বা পাত্তা পান না, তিনি জনপ্রতিনিধি দাবী করায়- অফিস ষ্টাফগণ দাঁত কেলিয়ে হেসেছে । হায় রে ! জনপ্রতিনিধি, ভোটছাড়া বা সরকার কর্তৃক ঘোষিত হবার পরিণাম কি তাও যে বুঝেন না ! এক ফেসবুক এক্টিভিটিস বললেন, আগামীতে কি আইন করে ভোট করতে কেন্দ্র আনতে হবে নাকি ? তো আরেকজন উত্তরে লিখছেন- শুধু আইন করলেই হবে না, ভোটদাতা অনুপস্হিত থাকলে জেল-জরিমানার ব্যবস্হাও থাকতে হবে । কি ভয়ানক রসিকতা চলছে এগুলো নিয়ে ! আমরা কি জোকার জাতি ? নাকি অসহায়ত্বের কবলে দেশ, হাস্যকর !

20190225_211621

– আলম শাহ্, বার্তা সম্পাদক, Dtv-Italy.