Sunday April11,2021

বিশ্বাস আনতে হবে কি, আমাদের আনতেই হবে ? বিশ্বাস করা আমাদের ব্যক্তিগত অধিকার এটাও যে হারাতে বসেছি ।
১. আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ঘিরে রেখেছে এজন্য যে, মহলের ভিতরে নাকি জংগী আছে, কর্মকর্তাগণ লাউড্স্পীকার মারফত সময়সীমা ঘোষণা চলছে, কিন্তু বেচারা জংগী বের হতে পারবে না, নিহত তাকে হতেই হবে । পরদিন সকল পত্রিকায় এর শানেনযুল আদিপান্ত্য খবরের কাগজে, হুমড়ি খেয়ে আমরা পড়েছি । বিশ্বাস যার যার, খবর ছাপানো হয়েছে পড়তে সবার ।
২. ব্যাংকগুলো লুঠপাট নাকি চলছে, কেন্দ্রীয় বাংলাদেশ বাংক কর্তৃক রিপোর্ট । বিদেশে পাচার হচ্ছে অর্থ, লোপাট বৈদেশিক মুদ্রা তাও নাকি ১২ হাজার কোটি টাকার মতো । খবরের কাগজে পড়ছি, ভয়াবহ কথা ।
অথচ ব্যাংকে গচ্ছিত ২ কোটি টাকা বেড়ে নাকি ৬ কোটি হয়েছে কিন্তু নিস্তার নেই সাবেক প্রধানমন্ত্রী দেশনেত্রী খালেদা জিয়ার, এতিমখানার জন্য কুয়েত প্রদত্ত এ টাকার জন্য তাঁকে অসুস্থ অবস্হায় কারাগারে অসহায় শাস্তি পেতেই হবে । দেশবাসীকে এ কাহিনী মানতে হবে ।
৩. নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হয়েছে ! নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা- শতকরা ৯৯ ভাগ ভোট পড়েছে, ৩০ ডিসেম্বর’১৮ নির্বাচনের দিনের আগের মধ্যরাত্রি থেকে বিপুল উৎসাহে ভোট প্রদান / চুরির পর সরকার কর্তৃক দয়া করে বিরোধীদলগুলোকে দেয়া ৮ আসন ছাড়া সকল আসনে সরকারী দল জয়ী । খবরে প্রকাশিত, আমরা জনগণ মিডিয়ায় দেখেছি । বিশ্বাস যার যার, প্রকাশিত খবর সবার ।
৪. অতিসম্প্রতি ঢাকা’র চকবাজারে অগ্নিকাণ্ডে
ভয়াবহ মৃত্যুর মিছিল, প্রশাসনিক ব্যর্থতা ঢাকতে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোর ও অধিদপ্তরগুলোর অগ্নিকাণ্ড হবার পরষ্পর বিরোধী ব্যাখ্যা দান । মানব জীবনের মূল্য তাতে মোটেও বাড়ে নি । অব্যবস্হাপনা, স্বজন প্রিয়তা, দূর্নীতি সর্বক্ষেত্রে জগদ্দল পাথরের মতো চেপে বসেছে । পড়েছি তো খবরের কাগজে, টিভি মিডিয়ার ফলোআপ দেখছি ।
৫. একটি ঘটতে না ঘটতে আরকটি ঘটে । এটি নাকি ঘটানো হয়, কি ভয়াবহ কথা। এমনটি নাকি সর্বশেষ বিমান ছিনতাইয়ের ঘটনা। কেউ বলছে- মানসিক রোগী, কেউবা বলছে- পারিবারিক হতাশা থেকে, উদ্ধারকাজে সংশ্লিষ্ট একজন বলেছে- কোনো এক নায়িকার প্রেমে নাকি ছেঁকা খেয়ে, বিমান প্রতিমন্ত্রী তো সাংবাদিকদের বলেই বসলেন- প্রধানমন্ত্রী নাকি আগে থেকেই বিষয় জানেন, কি ভয়াবহ কথা ! কেবল আমরা খবর পড়ে বিশ্বাস করি বা কেউবা করে না । এখন পর্যন্ত সুনিদির্ষ্ট করে কেউই তার নাম-ধাম, বাড়িঘর কোথায়, কি উদ্দেশ্যে এটা করেছে কিছুই বলতে পারছে না । বিমানবাহিনী প্রধান বলেছেন, কমান্ডোদের সাথে গোলাগুলিতে সে নিহত হয়েছে, মাত্র ৮ মিনিটে অভিযান সমাপ্ত । আবার বিমানটি সংশ্লিষ্ট একজন বলেছেন ছিনতাইকারীর কাছে পাওয়া পিস্তলটা একটি খেলনা ছিল, কোন বোমা নাকি পাওয়া যায় নি, বুকে নাকি কিছু তার পেচানো ছিল । তবে গোলাগুলি হলো কিভাবে ? যাত্রীদের বের করার পর তিনটিগুলির শব্দ কে একজন শুনেছেন । আবার মেরামত করা লাগেনি, রাত ১১টায় বিমানটি সকল যাত্রীদের নিয়ে দুবাইয়ে চলেও গিয়েছে নিরাপদে । হতভাগ্য বেচারা ছিনতাইকারী ! আমরা এখন অপেক্ষা করব- তদন্ত কমিটি হচ্ছে, তাদের তদন্ত রিপোর্টে জানব ফিরিস্তি, বিভিন্ন টিভি মিডিয়ায় দেখব শ্বাসরুদ্ধ ফলোআপ !

কিন্তু ফেসবুকের উৎসাহী এক্টিভিটিসরা ! এরা যে বিশ্বাসই করতে চায় না ! আরে, নাটক হচ্ছে, চকবাজার অগ্নিকান্ডে সরকারী অব্যবস্হপনা ঢাকতে সরকারী নতুন নাটক !

 

20190225_211621

 আলম শাহ্, বার্তা সম্পাদক, Dtv-Italy.