Thursday March4,2021

এ ব্রোকেন ড্রিম: রুল অব ল,হিউম্যান রাইটস অ্যান্ড ডেমোক্রেসি- সুরেন্দ্র কুমার সিনহা

মাননীয় সাবেক বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা সাহেবের সাম্প্রতিক কালের প্রকাশিত বইটি নিয়ে দেশে এবং বিদেশে বেশ আলোচিত। ওনার বইটি যেদিন অ্যামাজোনে প্রথম আংশিক প্রকাশিত হয়েছিলো, তখন সেই আংশিক অংশটুকু বাংলা অনুবাদ করে প্রকাশ করেছিলাম। এখন বইটি প্রায় সকলের হাতেই চলে এসেছে। আমিও বইটি পেয়েছি এবং পড়েছি। বইটি যেহেতু বর্তমানে বেশ চমকপ্রদ আলোচ্য বিষয়, সেই তাগিদ থেকেই শেষের দিকের অধ্যায়-২৮ বাংলায় অনুবাদ প্রকাশ করছি। বাংলা অনুবাদে সিনহা সাহেবের লেখার হুবুহু প্রকাশের প্রচেষ্টা অব্যাহত রাখার চেষ্টা করেছি।

অধ্যায় ২৮:  সর্বোচ্চ আদালতের বিচারক এবং রাজনীতিবিদদের নৈতিক মূল্যবোধ।

আমি নিয়মিত বিচারকদের সাথে আমার সম্মুখীন হওয়া সমস্যাগুলি নিয়ে আলোচনা করতাম এবং তাদের মতামত গ্রহণ করতাম। এটি আপিল বিভাগ থেকেই আমার দীর্ঘদিনের চর্চা । আমি পাঁচজন প্রধান বিচারপতির সাথে কাজ করেছি , তাদের কেউই বিচার বাভিগের প্রশাসনিক সম্পর্কিত বিষয়গুলির নিয়ে  সহকর্মী ভাই, বিচারকদের সাথে আলোচনা করতেন না। সাবেক প্রধান বিচারপতি এটিএম আফজাল সাহেবের একটি পরামর্শ আমি মনে রেখেছিলাম যে , সাবেক প্রধান বিচারপতি কামাল উদ্দিন হোসেন যখন হাইকোর্টে ছিলেন ,যখনই তিনি আদালতে সময় কাটাটেন , সময় পেলেই তিনি পাশাপাশি প্রশাসনিক কাজের প্রতিও নজর রাখতেন , কেননা তিনিও একদিন প্রধান বিচারপতি হতে পারেন ।  বিচারকদের প্রশাসনিক কাজে কোন অভিজ্ঞতা থাকে না। যে কোনও জেলা আদালতে যে কোনও সমস্যা দেখা দিলে আমি তাদেরকে সময়কালের ডাকতাম এবং তাদের পরামর্শ গ্রহণ করতাম। আমি লক্ষ্য করেছি যে আমাদের সমস্ত আলোচনা, পরিচর্যা পর্যায়ক্রমে বেশ পরিচিত হয়ে উঠেছে। আমি সমস্যা সংশোধনের চেষ্টা করেও করতে পারিনি। আমি বিচারকদের কাছে সব সময় একটি অনুরোধ করতাম, অন্যদের কাছে কোনো আলোচনা  প্রকাশ না করার জান্য । কিন্তু আমার অনুরোধ কোন ফল দেয়নি। যখন আমি বুঝতে পারি কোনো  কিছুই গোপন রাখা যাচ্ছে না  , তখন আমি বিচারকদের মনে করিয়ে দিয়েছিলাম যে, তারা সর্বোচ্চ আদালতের বিচারক এবং তাদের দেওয়া সম্মান দেশের অন্যান্য সম্মানের সাথে তুলনাযোগ্য নয়, তবে আমার সকল অনুরোধ বিথা হয়ে গেছে। এমন অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ছিল যা নিয়ে সরকার এবং একজন মন্ত্রী ভীষণভাবে আগ্রহী ছিলেন, কিন্তু  আমাদের নিজেদের মাঝে যত আলোচনা হয়েছিল সেই সকল আলোচনাই ফাঁস  হয়ে গেছে।

ষোড়শ সংশোধনী বিষয়ে সকল বিচারক মতামত প্রকাশ করেন যে প্রধান বিচারপতি যেকোনো সম্মেলনে একটি আদালত হিসাবে কথা বলবেন । এই বিষয়ে   মোহাম্মদ আবদুল ওয়াহাব মিয়া তাঁর নিজের মত করে  মতামত প্রকাশ করেছেন। রায় ঘোষণার পর অবিলম্বে এবিএম খায়রুল হক ৫ আগস্ট, ২০১৭ তারিখে এক বিচারপতি সম্মেলনে এবং ব্যক্তিগতভাবে ষোড়শ সংশোধনী রায়কে আক্রমণ করে কথা বলেন এবং  ব্যক্তিগতভাবে আমাকেও আক্রমণ করে কথা বলেন। তিনি বলেন, প্রধান বিচারপতি যা বলেছেন তা প্রধান শিক্ষক হিসাবে এবং অন্য বিচারকরা কেবলমাত্র  তার মতামত গ্রহণ করেছেন।আশ্চর্যের বিষয় হলো , একজন সাবেক প্রধান বিচারপতি অন্যান্য বিচারপতিদের কেবল নমনীয় করেন নি বরং সর্বোচ্চ আদালতের অন্যান্য বিচারকদের হতাশ করেছেন, তা অবাক করে দেয়। তিনি ব্যক্তিগতভাবে আমাকে অপছন্দ করতেই পারেন । যদিও  আমি তাকে অনেকবার অনেক অবস্থান থেকে  উদ্ধার করেছিলাম, কিন্তু অন্যান্য বিচারকদের বিরুদ্ধে কেন ?  আমি তার অসংযত মন্তব্য সম্পর্কে কোন মন্তব্য করতে কোন উপযুক্ত ভাষা খুঁজে পাচ্ছি না। সাংবাদিকরা খায়রুল হককে পঞ্চম সংশোধনী মামলার বিষয়ে অপ্রাসঙ্গিক মন্তব্যের বিষয়ে জিজ্ঞাসা করলে তিনি এই প্রশ্নটি এড়িয়ে যান। তিনি ১৬ তম সংশোধনীর রায় নিয়ে সংবাদ সম্মেলন ডেকেছিলেন। এবিএম খায়রুল হক ও আইনমন্ত্রী আনিসুল হক তারা এক প্রেস কনফারেন্সে একই রকম (অনুরূপ)ভাষা ব্যবহার করেন।ওনারা আমার নিবন্ধনগুলি ,আমার মতামত, সমালোচনা করেন , পক্ষ নেন ঠিক আছে । কিন্তু কেন বা কি করে একজন বর্তমান  প্রধান বিচারপতির চরিত্র নিয়ে এভাবে কথা বলেন ? তারা একই পরিবারের সদস্য হলেও তারা সমস্ত নিয়ম কানুন অতিক্রম করেছে। তারা বিচার বিভাগকে অনেক ক্ষতি করেছে। এরপরে, বিচারকগণ একের পর এক  নিজের মতকরে মতামত প্রকাশ করতে শুরু করেন। তখন এটা আমার কাছে স্পষ্ট যে স্ট্রিং(প্রসারণ)অনেক হয়ে যাচ্ছে । কেউ পর্দার পিছনের দিক থেকে প্রসারণ করছিলো এবং পুতুল দর্শকদের কাছে অনেক আনন্দ দিচ্ছিল। আমি নিজেকে জিজ্ঞেস করছিলাম যে, আমরা কোন পথ বেছে নিলাম? এগিয়ে না পিছনে যেতে। আমার মনের মধ্যে দ্বিতীয় প্রশ্নটি ছিল যে প্রতিটি কাজ, জিনিস বা কাজ শেষ হওয়া উচিত। আমাদের নির্দিষ্ট পর্যায়ে কিছু বিষয় বন্ধ হওয়া এবং অবিরাম ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে যাওয়া উচিত? যদি তা না হয়, আমি জানি না, আমাদের পরবর্তী প্রজন্মের ভাগ্যে কি জুটবে ?  মানুষ তাদের পরিবার, সম্প্রদায় এবং জাতির গল্পের মাধ্যমে, সময়ে তাদের জায়গা আবিষ্কার করে নেয়। স্বাধীনতা ও সমতা, অবিচার ও সংগ্রাম,  ক্ষতি এবং অর্জনের এই সাহিত্য,  সাহস ও জয় মানুষের জীবনের ব্যক্তিগত দিককে আকৃষ্ট করে। ইতিহাস শক্তিশালী, স্পন্দনশীল সম্প্রদায়ের জন্য ভিত্তি। পারিবারিক গল্প, উপজাতীয় ঐতিহ্য, সংস্কৃতি, এবং নাগরিকের প্রশংসা এবং পাশাপাশি আমাদের ভূমিকা এবং দায়িত্বগুলি একে অপরের পরিপূরক ।

ইতিহাস মানুষকে একটা ভাল ভবিষ্যত গড়ার কল্পনা করতে সাহায্য করে। মানুষ যখন  মতামত প্রকাশের জন্য আহ্বান জানায়, গণতন্ত্র তখন তীব্র হয়, অন্যদের কথা শোনে এবং পদক্ষেপ নেয়। সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আলোচনার বয়ান ইতিহাস থেকে বিভিন্ন দৃষ্টিকোণ থেকে করে এবং ভুল ধারণাগুলি ব্যাখ্যা করে, জটিলতাগুলি প্রকাশ করে, প্রমাণের প্রতিদ্বন্দ্বী মতামত দেয় এবং নতুন ধারণাগুলি উপস্থাপন করে। সব বৃহত্তর বোঝাপড়া  এবং কার্যকর সমাধান হতে পারে। ইতিহাস সংরক্ষিত এবং এই  সংরক্ষণ ভবিষ্যতের প্রজন্মের জন্য ভিত্তি। গণতন্ত্র, আইনের শাসন, মানবাধিকার ও মানবাধিকার রক্ষা করার জন্য ঐতিহাসিক জ্ঞান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। খাঁটি এবং অর্থপূর্ণ নথি, আর্টিফেক্টস, চিত্র, গল্প এবং স্থানগুলি সংরক্ষণ করে, ভবিষ্যত প্রজন্মের ভিত্তি গড়ে ওঠে, যা নাগরিক সমাজের সদস্য হওয়ার মানে কী? তা গড়ে তুলতে পারে। মূল্যগুলি ব্যক্তি বা সম্প্রদায়ের দ্বারা গুরুত্বপূর্ণ বা মূল্যবান সম্পর্কে ভাগ করে নেওয়া হয়। এথিক্স কর্ম ও মূল্যবোধ উদ্ভাস হয়। ১৯৭২ সাল থেকে আমাদের দেশে শাসনরত আমাদের রাজনীতিবিদদের জন্য আমার কোন দুঃখ নেই। তারা ইচ্ছাকৃতভাবে অগ্রাহ্য বা ভুলে যেতে পারে বা অতীত ভুলে যেতে ভান করতে পারে কারণ শক্তি তাদের অন্ধ করে তোলে। কিন্তু আমাদের বিচারকদের সম্পর্কে কি বলবো ? তারা কি পাকিস্তান ও বাংলাদেশের সাবেক দুই প্রধান বিচারপতি ডঃ মুহাম্মদ মুনির বা ড: এফ কে এম মুনিমকে ভুলে গেছেন ? সাধারণ মানুষের হয়তো মনে নেই অথবা মনে রাখেন না বা মনে রাখেলেও,  তারা তাদের অতীত গল্পগুলি জানেন না । তবে আমি বিশ্বাস করি, আমাদের সর্বোচ্চ আদালতের বিচারকগণ তাদেরকে ভালো করেই মনে রেখেছেন।  ১৯৭১ সালে সামরিক শাসনামলে টিক্কা খানের গভর্নর জেনারেলের শপথ পরিচালনার জন্য পূর্ব পাকিস্তানের সাবেক প্রধান বিচারপতি বদরুদ্দীন আহমেদ সিদ্দিকীকে তারা কি মনে রাখেননি ? উচ্চ আদালতের দুই সাবেক প্রধান বিচারপতিদের সাথে যদি তুলনা করা হয়, তারা তার চেয়ে বেশি যোগ্যতাসম্পন্ন ছিল না, তবুও তার ব্যক্তিত্ব এবং সততা দুটিই তুলনায় অনেক বেশি। তারা ইচ্ছাকৃতভাবে আমাদের ইতিহাসের জ্ঞান (sagacity)  এবং পাঠ ভুলে গেছে, এটি বিচার বিভাগের জন্য একটি আত্মঘাতী অবস্থা স্বরুপ।

সৈয়দ মাহমুদ হোসেন ও হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী বলেন, আমি সংবিধানের ১১৬ অনুচ্ছেদ সম্পর্কে পর্যবেক্ষণ করেছি যা আপিলের ক্ষেত্রে কোনও সমস্যা ছিল না। উভয়েই বলেন, আমি বিষয়টির ভিতরের অংশ বিস্তারিত পর্যবক্ষেণ করিনি। আমি দুঃখিত আমাকে বলতেই হচ্ছে যে, সাংবিধানিক বিষয়গুলিতে বিচারিক পর্যালোচনা সম্পর্কে তাদের একটু কম ধারণাই লক্ষীত হয়। সম্ভবত তারা পঞ্চম  সংশোধনী, অষ্টম সংশোধনী এবং মাসদার হোসেনকে অনুধাবন করতে পারেনি, তারা কেসবানদা ও মারিবারি (Kesavanada and Marbury)নিয়ে কথা বলেননি। আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বস করি এবং এখনও দৃঢ়তার সাথে দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি যে, দুই মন্ত্রীদের ক্ষেত্রে অবমাননাকর মামলা করার ক্ষেত্রে তাদের মতামত একটি নির্দিষ্ট কোণ ( certain corner) থেকে দেওয়া। উপরের পাঁচটি ঐতিহাসিক মামলার মতামত পড়লে আমি খুশি হব। তারা তাদের উত্তর পেতে পারেন। এই সমস্ত সিদ্ধান্তগুলি সকলের দ্বারা গৃহীত হয়েছে এবং তাদের পর্যালোচনা সম্পর্কে কোনও প্রশ্ন উত্থাপিত হয়নি। নির্বিচারে বা পক্ষপাতমূলক সিদ্ধান্ত বা অন্যান্য ভয়ানক ভুল এবং বিচারকদের দ্বারা গুরুতর ভুল বিচার, যদি না সংশোধন হয়, তাহলে অপরাধের শাস্তি নাও হতে পারে। সংবিধানে ব্যাখ্যা করার সময়, চলমান জীবনযাত্রার একটি পুরাতন দলিল, বিচারকদের বিচারিক বিশ্লেষণের ঐতিহ্যবাহী সরঞ্জামগুলি ব্যবহার করা উচিত -পাঠ্য, অর্থ, মূল্য বোঝার এবং সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে উদাহরণ হিসেবে আসতে পারে। জন মার্শালের (John Marshall’s) উল্লিখিত  বচন “আইনটি বলতে বলতে”(  To say what the law is )  কিভাবে ইন্টারনেটে আঠারো শতকের নথিটি প্রয়োগ করবেন ।ডিএনএ পরীক্ষা, ইলেকট্রনিক নজরদারি, স্মার্ট ফোন, ভিডিও গেমস, সোশ্যাল মিডিয়া, গে বিয়ে, ইতিবাচক পদক্ষেপে কেপিট্যাল শাস্তি প্রদান য়োগ হয় কিন্তু অন্য সমাজ ব্যবস্থায় এগুলো নিষ্ঠুর ও অস্বাভাবিক বটে।

হার্ভার্ডের কেনেডি স্কুল অফ গভর্নমেন্টের একজন রাজনৈতিক বিজ্ঞানী মায়া সেন (Maya Sen) লিখেছেন, “রাজনীতি আমাদের বিচার ব্যবস্থায় রুপান্তরিত করার ক্ষেত্রে সত্যিই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।” তিনি যুক্তি দেন যে এই কারণেই নিয়োগকারী কর্তৃপক্ষ বিচার বিভাগীয় নির্বাচন প্রক্রিয়ার মতাদর্শের হিসাব নেয়। সেন উপসংহারে বলেছেন যে নিচের লাইনটি আদালতের রাজনৈতিকীকরণের পক্ষে সাম্প্রতিক রক্ষণশীলতা। তিনি মনে করেন যে রক্ষণশীলরা বৈধ বিচার বিভাগীয় প্রার্থীদের বিকাশের জন্য কঠোর পরিশ্রম করেছে, মূলত ফেডারেল সমাজের মাধ্যমে, আইন স্কুল ক্যাম্পাসগুলিতে সক্রিয় একটি রক্ষণশীল সংগঠন, যা আগে এলিটো, থমাস এবং স্কালিয়া (Alito,Thomas,  and Scalia) কথিত হয়েছে। তাদের সম্পর্কে আমার কোন মন্তব্য নাই। এটি নিশ্চিত যে মার্কিন সুপ্রিম কোর্টের বর্তমানে নয়জন বিচারপতিগণ তারা অত্যন্ত বা সর্বোচ্চ বুদ্ধিজীবী মানের, এমনকি তারাও রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নিতে থাকে। স্কালিয়া বলেছিলেন, “বিচারকরা রাজনৈতিকভাবে পক্ষপাতী বলে পরিচিত।” তাদের ধর্ম, তাদের পেশাগত প্রশিক্ষণ, তাদের ব্যক্তিগত জীবন অভিজ্ঞতা তাদের রাজনৈতিক মতামতগুলি অন্য সকলের মতোই প্রকাশ পায়। বিচারপতি ব্র্যান্ডেসের (Brandies)পর্যবক্ষেণ অনুযায়ী, আইন কোনো কৃত্রিম সিস্টেমের কারণ হিসাবে হয় না বরং একটি কোর এ স্বাধীনতার সঙ্গে নৈতিক আদর্শের যৌক্তিক এক্সটেনশান। তিনি তার সহকর্মীদের ইচ্ছাকৃতভাবে প্রমাণ সংগ্রহের জন্য সরকারকে ওয়্যারট্যাপ প্রযুক্তির (wiretap technology) ব্যবহার সমর্থন করার ইচ্ছা প্রকাশ করেছিলেন এবং এক ব্যক্তির “একা থাকতে দেওয়ার অধিকার” জন্য উত্সাহিত করেছিলেন। তার অসঙ্গতি ধ্বনিত(ringing dissent) অসঙ্গতি ধ্বনিত এখনো আদালতের ইতিহাসে সবচেয়ে উদ্ধৃত এক মতামত । তিনি লিখেছিলেন, “স্বাধীনতার জন্য জন্মগ্রহণকারী পুরুষরা মন্দ মনের শাসকদের দ্বারা তাদের স্বাধীনতার উপর আক্রমণের জন্য স্বাভাবিকভাবেই সতর্ক থাকে,” স্বাধীনতা সর্বাধিক বিপদ, উদ্যোগের লোকেদের দ্বারা জোরপূর্বক অযৌক্তিকতার অচলতা লুকিয়ে রাখে, কোনো বোঝাপড়া  ছাড়াই। “তার হয়তো আজকে এনএসএর গণতান্ত্রিক নজরদারি কার্যক্রম সম্পর্কে লেখার কথা। ব্রান্ডি আইনী বিচারক ছিলেন, যিনি সংবিধানের কাঠামোতে পাঠ্যক্রমটি উপস্থাপন করেছিলেন বা বিচারক বিশপ ক্যানন (Bishop Canon)ভবিষ্যদ্বাণী করেছেন যে, এটি যখন “দ্বন্দ্ব”(“difficult)মধ্যে আইন এবং একটি “সাউন্ড পাবলিক পলিসি এবং রাষ্ট্রের নৈতিক ও বস্তুগত কল্যাণে, সিদ্ধান্তের সাথে সম্পূর্ণভাবে নির্দ্বিধায় হওয়া উচিত”?   Antonin Scalia, বিশ্বাস করেন যে সংবিধান “স্থায়ী”(“enduring”)  যদি মৃত না হয়, এর অর্থ হচ্ছে এটি পাঠ্য এবং আসল বা বাস্তবতা বোঝার দিকে তাকিয়ে আছে, এটা কোনও “জীবন্ত”(“living”)সংবিধানের উদার ধারণা নয়, যার অর্থ ন্যায়বিচারের অর্থ যাই হোক না কেন। প্রিন্সটন(Princeton)-এ নিক ইস্টার্ন স্টাডিজের একজন অধ্যাপক মন্তব্য করেছিলেন, “স্কালিয়া সংবিধানকে একইভাবে ব্যাখ্যা করে যেভাবে আইএসআইএস(ISIS)শরিয়াকে ব্যাখ্যা করে।”   Scalia বিশ্বাস করে যে সংবিধানের টেক্সট, এবং অনুমোদনের সময় তার অর্থের মূল বোঝা এবং কিভাবে কোর্ট তার ব্যাখ্যা করেছে,  একটি ব্যক্তিগত ন্যায়বিচারের ব্যক্তিগত দৃষ্টিভঙ্গি, ব্যাখ্যা না করার সিদ্ধান্তের মধ্যে নিষ্পত্তিমূলক কারণ হওয়া উচিত, যারা সংবিধানের অর্থ কি তা নিজের মতো করে বোঝাতে চান । মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বিচারব্যবস্থা, মারিবারিতে দীর্ঘ বিতর্কের পরে, এখন সরকারের সমান শাখা হিসাবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, নির্বাহী এবং নজরদারি এবং ভারসাম্যতা(“checkand balance”) প্রক্রিয়া হিসাবে কাজ করছে । সরকারের আইনী শাখায়,  সংবিধানই সংবিধানের অভিভাবক (guardian of    the Constitution)। ১৯১৮ সালে মার্শালের মতে, “আমরা অবশ্যই ভুলে যাব না, এটি একটি সংবিধান যা আমরা ব্যাখ্যা করছি। ৮  আদালত এই নতুন অর্জিত শক্তিটি কমপক্ষে ব্যবহার করবে। এখনও, উটের নাক তাঁবুতেই আছে” (    Still, the camel’s nose was in the tent)। মার্শাল আমেরিকার প্রথম দিকের সুপ্রিম কোর্টকে সিনিয়র অধিনায়ক হিসেবে নিয়ে আসেন এবং কয়েক শতাব্দী ধরে বিচার বিভাগীয় ক্ষমতা প্রতিষ্ঠা করেন এবং কোর্ট বর্তমানে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারীভাবে রাজনৈতিক পছন্দগুলি তুলনায় রাজনৈতিকভাবে বেশি পছন্দ করে এই ক্ষমতা প্রয়োগ করছিলেন। তাদের আদালত কর্তৃপক্ষের অন্যান্য শাখার অতিরিক্ত কর্তৃত্ব কমানো এবং তার আদেশের সাথে সম্মতি জানানোর জন্য তার আঞ্চলিক অধিকার প্রয়োগ করে। আদালত যদি কখনো অপ্রচলিত সংখ্যালঘুদের মৌলিক সাংবিধানিক অধিকারগুলি সুরক্ষিত ও সংজ্ঞায়িত করতে পারে তবে আইনটির ব্যাখ্যা এবং সংজ্ঞা করার জন্য এটি অসাধারন বিচার বিভাগীয় ক্ষমতা প্রয়োগের প্রয়োজন ছিল এবং অপরিহার্য বৈশিষ্ট্য ছিল সরকারের সকল নির্বাহী শাখার সহিত সকল লোককে তার ম্যান্ডেট জমা দেওয়ার ক্ষমতা। সুতরাং, আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের আইনের শাসন শুরু হয়েছিল। ৯ বিচার বিভাগীয় কর্তব্যের মূল বিষয়টি হলো আদালতের অবশ্যই কোন বিধানটি আইন বা সংবিধানের অন্য কোন সংস্থানের সাথে সঙ্গতিপূর্ণ নয়, ঠিক বা স্থির করতে হবে এবং আদালতের অবশ্যই সেই ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত নিতে হবে আইনের সাথে সাদৃশ্য বিষয় সংবিধান অনুযায়ী  ব্যাখ্যা করা আবশ্যক। বিচার বিভাগীয় পর্যালোচনার ধারণাটিকে আদালতের অন্তর্নিহিত বা প্রয়োজনীয় এবং যথাযথ শক্তি হিসাবে ঘোষণা করা হয়, অসাংবিধানিক বিষয়গুলির সাধারণ বিচারিক পর্যালোচনা আদালতের আধিকারিকের মূল বিষয়। ম্যারবেরি সিদ্ধান্তের পর সরকারটির প্রধান সমালোচনা ছিল যে এটি নিজেই সিদ্ধান্তের একটি নিয়ম হিসাবে মাহাত্ম্যকর (awesome) ছিল-এই আইনের বিধানের জন্য মতবাদ অপরিহার্য ছিল না, সংবিধান সময়ের সাথে সাথে বিকশিতকে বোঝায়।
শর্ত, চাহিদা ও সমাজের পরিবর্তনের মান যেমন সাংবিধানিক নকশার অন্তর্নিহিত কারণ, একটি ক্রমবর্ধমান জাতি এবং একটি পরিবর্তনশীল বিশ্বের জন্য একটি সাধারণ চার্টার হিসাবে কাজ করার জন্য নথিভুক্ত । সুতরাং সাংবিধানিক ব্যাখ্যাগুলিকে অবশ্যই সমসাময়িক নিয়ম ও পরিস্থিতির দ্বারা জানাতে হবে, কেবল তার মূল অর্থ দ্বারা নয়। সংবিধানের পাঠ্যকে পরিবর্তনশীল বিশ্বের সাথে মানিয়ে নেওয়ার ক্ষমতা বিবেচনা করা উচিত, অন্যথায় শব্দগুলিতে ঘোষিত অধিকারগুলি হারিয়ে যেতে পারে। ১০ একটি মুক্ত জাতির সাংবিধানিক শাসন মানে জনগণের যৌথ প্রচেষ্টাকে সরকারের বাহিরে এবং সাধারণ মানুষের বিকাশকে অর্জন এবং সমানতা,  ন্যায়বিচার ও সবার সাংবিধানিক লক্ষ্য অর্জন করা। সাংবিধানিক শাসনের জন্য “প্রত্যেককে নিজের কাছে” থেকে “অন্যদের জন্য উদ্বিগ্ন” থেকে মনস্তত্ত্ব বিকাশ করতে হবে। একটি স্বাধীন জাতির সাংবিধানিক শাসন ব্যবস্থা, শাসক এবং শাসিত উভয় নাগরিকের জন্য । সরকারের মধ্যে যারা আছেন , বুঝতে হবে তারা কেবল পাবলিক অফিসের ধারক নয়। তাদের অবশ্যই আলোকিত নাগরিক হওয়া উচিত এবং সংবিধানে নির্ধারিত লক্ষ্যগুলি অর্জনের জন্য মানুষের উন্নয়নের জন্য অন্যদের কাজ করার জন্য উদ্বেগ দেখাতে হবে। সুতরাং, নির্বাচিত সরকারকে বিচার বিভাগের অনির্বাচিত  অন্তর্ভুক্ত বিশেষজ্ঞদের জন্যও জবাবদিহিমূলক এবং জবাবদিহি করতে হবে, যাতে কেবল ভোট, সংখ্যালঘু অধিকার এবং ব্যক্তির অধিকারগুলি ছিনতাই করা বা হস্তক্ষেপ করা না হয়। এটি সাংবিধানিক আদালতগুলির বিচারকদের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা, যারা নাগরিকদের মৌলিক মানবাধিকার রক্ষার জন্য নজরদারী হিসাবে কাজ করেন ।

তথ্যসূত্র:
১. “কেন বিচারকেরা তাড়াহুড়ো করেন” নিউইয়র্ক টাইমস, ১ফেব্রুয়ারী, ২০১৫ এর নিউ ইয়র্ক টাইমসের আদম লিত্তাক ২ মরিসন ভি। ওলসন, ৪৮৭  মার্কিন ৬৫৪, ৭৩০ (১৯৮৮) ৩. সুপ্রীম্যাল পার্টিশান, পৃষ্ঠা ২৯৪. ২৭৭ মার্কিন ৪৩৮ আইন ৪৭১ (১৯২৮)৫. সুপ্রীমর পার্টিশান, পৃষ্ঠা ১২৫ ৬. সুপ্রীম্যাল পার্টিশান, পৃষ্ঠা ১৯৩  ৭. আইবিড, পৃষ্ঠা ১৯৫  ৮. ম্যাকুলোক ভি। মেরিল্যান্ড ১৭ মার্কিন ৩১৬, ৪০৭ (১৮১৯) ৯ সর্বাধিক পার্টিশন, পৃষ্ঠা ৮২  ১০. ওলমাস্টেড, ২৭৭ মার্কিন @ ৪৭২- ৪৭৩  ১১. মানবাধিকার, পৃষ্ঠা ৩৪৫  ১২. আমেরিকান ফিলোসফিকাল সোসাইটির কার্যপ্রণালী, ভল ৯১  নম্বর ৫, পৃষ্ঠা ৪০৫-৪২০  ১৩. অলিভার ওয়েন্ডেল হোমস, জুনিয়র, দ্য কমন ল। ১৪. চাফ, “বিচারকেরা আইন তৈরি করেন বা আবিষ্কার করেন?” পৃষ্ঠা ৪২০  ১৫. এ কে গোপালান ভি। মাদ্রাজ রাজ্য (১৯৫০) এসসিআর ৮৮ , ১৬. বিচারপতি ভি আর কৃষ্ণ আয়ের, আইন ও জীবন, পৃষ্ঠা ২৮৬-২৮৭

বাংলা অনুবাদে:  বুলবুল তালুকদার

সহকারী সম্পাদক, শুদ্ধস্বর ডটকম